সিনহা হত্যা : আরও সময় পেল তদন্ত কমিটি

সিনহা হত্যা : আরও সময় পেল তদন্ত কমিটি

কক্সবাজারে পুলিশের গুলিতে অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা সিনহা মো. রাশেদ খান নিহতের ঘটনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটিকে আরও সাত দিন সময় দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফ মাহমুদ অপু।

তিনি বলেন, সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তদন্ত কমিটি সময় বাড়ানোর জন্য আবেদনের প্রেক্ষিতে আরও সাত কর্মদিবস বাড়ানো হয়েছে, যা শেষ হবে ৩১ অগাস্ট।

চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মোহাম্মদ মিজানুর রহমানকে প্রধান করা গঠিত এই কমিটির সদস্যরা হলেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহা. শাজাহান আলি, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শকের (ডিআইজি) একজন প্রতিনিধি এবং সেনাবাহিনীর রামু ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসির একজন প্রতিনিধি।

গত ৩১ জুলাই কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ সড়কে পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারান অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা। তল্লাশি চৌকিতে থামালে সিনহা গুলি করতে উদ্যত হলে পাল্টা গুলি চালানো হয় বলে পুলিশ দাবি করলেও তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠার পর গত ১ অগাস্ট স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। পরদিন কমিটি পুনর্গঠন করা হয়।

পুনর্গঠিত এই তদন্ত কমিটিকে সাত দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হলেও ১০ অগাস্ট তদন্ত কমিটি সময় বাড়ানোর আবেদন করে। তখন ২৩ অগাস্ট পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল কমিটির।

কমিটিকে সরেজমিনে তদন্ত করে ঘটনার কারণ ও উৎস অনুসন্ধান করে এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা প্রতিরোধে করণীয় সম্পর্কে মতামত দিতে বলা হয়েছে।

কমিটি ইতোমধ্যে গণশুনানি নিয়েছে।

সিনহার মা নাসিমা আক্তার এর আগে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, এ পর্যন্ত চলা তদন্তে তিনি খুশি, তবে তদন্ত যাতে দীর্ঘায়িত না হয়।

এদিকে সিনহার বোনের করা হত্যামামলা তদন্ত করছে র‌্যাব। মামলার আসামি টেকনাফ থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৭ পুলিশ সদস্যকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করেছে র‌্যাব। তাতে ‘চাঞ্চল্যকর’ তথ্য পাওয়া গেছে বলে র‌্যাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

সিনহা নিহত হওয়া নিয়ে সেনাবাহিনী ও পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তদন্তে যারাই দোষি প্রমাণিত হবে তাদের শাস্তি হবে এবং এই ঘটনা দুই বাহিনীর সম্পর্কে চিড় ধরাবে না।

দুই বছর আগে সেনাবাহিনী থেকে অবসরে যাওয়া রাশেদ ‘লেটস গো’ নামে একটি ভ্রমণ বিষয়ক ডকুমেন্টারি বানানোর জন্য গত প্রায় এক মাস ধরে কক্সবাজারের হিমছড়ি এলাকায় ছিলেন।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *