‘রেড জোনে’ কঠোর ব্যবস্থা নেবে পুলিশ

'রেড জোনে' কঠোর ব্যবস্থা নেবে পুলিশ

দীর্ঘ দুই মাস সাধারণ ছুটি থাকার পরও দেশে জ্যামিতিক হারে বাড়ছে করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্তের সংখ্যা।

শনিবার (৬ জুন) পর্যন্ত দেশে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৩ হাজার ২৬ জন। মারা গেছেন ৮৪৬ জন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির লাগাম টানতে এবার এলাকাভিত্তিক লকডাউনের উদ্যোগ নিয়েছে পুলিশ। আক্রান্তের সংখ্যা বিচারে রেড জোন, ইয়েলো জোন এবং গ্রিন জোনে চিহ্নিত করা হবে এলাকাগুলোকে। বেশি আক্রান্ত এলাকাকে রেড, অপেক্ষাকৃত কম আক্রান্ত এলাকাকে ইয়োলো ও একেবারে কম আক্রান্ত বা সংক্রমণমুক্ত এলাকাকে গ্রিন জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হবে। গ্রিন জোনে সতর্কতা এবং ইয়েলো জোনে সংক্রমণ যেন আর না বাড়ে সেজন্য পদক্ষেপ থাকলেও রেড জোনকে করা হবে লকডাউন। এই জোনে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে ও জনসাধারণের চলাচল রোধে করোনার বিশেষ গাইডলাইন অনুযায়ী কঠোর হবে পুলিশ।

এ বাহিনীর দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, করোনাকালে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও পুলিশিং কার্যক্রমের জন্য ইতোমধ্যে একটি প্যান্ডেমিক এসওপি (স্ট্যান্ডিং অপারেটিং প্রসেডিওর) প্রণয়ন করা হয়েছে। এই এসওপি করোনা মোকাবিলায় সাফল্য দেখিয়েছে এমন সব দেশের পলিসি ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার পলিসিসহ বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনার আলোকে পুলিশ সদস্যের জন্য আধুনিকভাবে তৈরি করা হয়েছে এবং এটি সব ইউনিটে প্রেরণ করা হয়েছে। এর অধীনে পরিস্থিতি বুঝে ‘যে কোনো ব্যবস্থা’ নেবে পুলিশ।’

ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) সূত্র জানায়, এসওপি ছাড়া এ পর্যন্ত অন্য কোনো নির্দেশনা আসেনি। তবে প্রকৃত লকডাউনে যা যা করতে হয় পুলিশ তাই করবে। রেড জোনে সার্বক্ষণিক টহল, চেকপোস্ট, অকারণে ঘোরাঘুরি করা ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদ, মোবাইল কোর্ট পরিচালনাসহ ইত্যাদি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে পুলিশ সদরদফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) মো. সোহেল রানা  বলেন, করোনাকালে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও পুলিশিং কার্যক্রমের জন্য আমাদের একটি প্যান্ডেমিক এসওপি রয়েছে। এসওপিতে সুনির্দিষ্ট ও সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করা আছে যে, করোনাকালে বিভিন্ন পরিস্থিতিতে পুলিশ সদস্যরা কখন কীভাবে কাজ করবেন। এই এসওপির সাথে সংগতি রেখে আমাদের কার্যক্রম পরিচালিত হবে এবং উদ্ভূত যে কোনো পরিস্থিতিতে মানিয়ে নেয়ার মতো এলাস্টিক সক্ষমতা রয়েছে এই এসওপির। যে কোনো মুহূর্তে যে কোনো সময়ে এমনকি স্বল্প সময়ের নোটিশে আমরা এসওপি সংশোধন বা এরই সঙ্গে নতুন কোনো প্রয়োজনীয় কর্মপদ্ধতি সংযোজন করার সুযোগ রেখেছি।

সোহেল রানা আরও বলেন, স্বাভাবিক পুলিশিংয়ের পাশাপাশি সরকারের নির্দেশিত যেসব স্বাস্থ্যবিধি রয়েছে, সেসব বিশেষ নির্দেশনাও যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করবে পুলিশ।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *