ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধার বাংলাদেশিরা দেশে ফিরছেন

ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধার বাংলাদেশিরা দেশে ফিরছেন

পাচারের শিকার হয়ে ইউরোপ যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধার বাংলাদেশিদের দেশে ফেরত পাঠানো হবে। লিবিয়ার বিভিন্ন জেলে আটক এসব বাংলাদেশির ইতোমধ্যে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়েছে।

শনিবার (২৭ জুন) লিবিয়া দূতাবাসের ফেসবুক পেজে দেয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, লিবিয়ার সংশ্লিষ্ট সংস্থার বিশেষ সহযোগিতায় দূতাবাস থেকে বিভিন্ন জেল পরিদর্শন করে বাংলাদেশিদের রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করা হচ্ছে। এই সকল অভিবাসীসহ লিবিয়ায় অসুস্থ ও ভালনারেবল অবস্থায় আটকে পড়া প্রবাসীদের দ্রুত সময়ের মধ্যে দেশে প্রেরণের জন্য দূতাবাস হতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।

দূতাবাস জানায়, লিবিয়ায় মানবপাচারের শিকার ও যুদ্ধে আহত প্রবাসীদের উদ্ধারপূর্বক তাদের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করা হচ্ছে। এছাড়াও ভূমধ্যসাগর থেকে উদ্ধারের পর বিভিন্ন জেলে আটক প্রবাসীদের প্রয়োজনীয় সহায়তা নিশ্চিতকরণের জন্য দূতাবাসের পক্ষ থেকে লিবিয়া সরকারের বিভিন্ন দফতর এবং আইওএমের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের পক্ষ থেকে জানানো হয়, সকল অভিবাসীর কনস্যুলার ও কল্যাণমূলক সেবা নিশ্চিত করতে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যেও দূতাবাসের নিয়মিত কার্যক্রম ডিজিটাল পাসপোর্ট রি-ইস্যু, পাসপোর্ট ডেলিভারি, প্রত্যয়নপত্র ও সার্টিফিকেট ইস্যু, কাগজপত্র সত্যায়নসহ বিভিন্ন সেবা অব্যাহত রয়েছে।

লিবিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশিদের উদ্দেশে দূতাবাস জানায়, লিবিয়ায় করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতোমধ্যে দেশটি ভাইরাসের ঝুঁকি কমাতে সান্ধ্যকালীন কারফিউসহ বিভিন্ন প্রতিরোধমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এই অবস্থায় লিবিয়া সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ ও নির্দেশনা সকল প্রবাসীকে মেনে চলার জন্য অনুরোধ করেছে দূতাবাস।

তবে লিবিয়ায় এখন পর্যন্ত কোনো বাংলাদেশি নাগরিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়নি। তবে লিবিয়া সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক কর্মক্ষেত্রে সকলকে ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেয়া যাচ্ছে। একইসাথে সেবা গ্রহণের জন্য দূতাবাসে আগমনের ক্ষেত্রে নিরাপত্তার স্বার্থে সকলকে মাস্ক ও গ্লাভস পরিধান করে আসার জন্য অনুরোধ জানানো যাচ্ছে।

লিবিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের মধ্যে করোনাভাইরাসের উপসর্গ দেখা দিলে দেশটির জাতীয় রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রের টোল ফ্রি নম্বর ১৯৫-এ যোগাযোগ করার জন্য দূতাবাসের পক্ষ থেকে বিশেষভাবে পরামর্শ দেয়া যাচ্ছে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *