কারিগরি-বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণে আরো অর্থ বরাদ্দের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

কারিগরি-বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণে আরো অর্থ বরাদ্দের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্টসহ সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প থেকে সহায়তা দেয়ার ক্ষেত্রে কারিগরি ও ভোকেশনাল শিক্ষার্থীদের বেশি গুরুত্বের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্টের উপদেষ্টা পরিষদের ৬ষ্ঠ সভায় সংশ্লিষ্টদের এ নির্দেশনা দেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন ট্রাস্টের উপদেষ্টা পরিষদের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুব সমাজকে দক্ষ এবং যোগ্যতা সম্পন্ন প্রজন্ম গড়ে তোলার জন্য এ ট্রাস্ট থেকে কারিগরি ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের জন্য অরোও বেশি অর্থ বরাদ্দের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

চাকরির পেছনে ছোটার যে আমাদের মানসিকতা সেটার পরিবর্তন করতে হবে-এ কথা জানিয়ে ট্রাস্টের প্রধান পৃষ্ঠপোষক শেখ হাসিনা যুব সমাজকে চাকরি করার চাইতে চাকরি দেয়ায় মনযোগী হওয়ারও আহ্বান জানান। বলেন, যাতে তারা নিজেরাই উদ্যোক্তা হতে পারেন।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা মেধাবী কিন্তু দরিদ্র শিক্ষার্থীদের স্বাবলম্বী করে তোলার সঙ্গে সঙ্গে তাদের পরিবারকে আরোও উন্নত করতে শিক্ষাগত সহায়তা প্রদানের জন্য এ ট্রাস্ট গঠন করেছি।

উচ্চশিক্ষার জন্য মেডিকেল, প্রকৌশল এবং সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে আর্থিক সমস্যায় পড়া দরিদ্র শিক্ষার্থীদের বৈঠকের আগে শিক্ষাগত সহায়তা দেয়ার প্রস্তাব করার সময় প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

সরকারি বৃত্তি, উপবৃত্তি প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা সহায়তা কীভাবে কাজে লাগাচ্ছেন এবং তাদের সুবিধা-অসুবিধাগুলোর বিষয়ে মনিটরিং বাড়াতে বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে সিট ক্যাপাসিটি অনুযায়ী শিক্ষার্থী ভর্তি করানোর নির্দেশনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কিছু প্রতিষ্ঠান ইচ্ছে মতো অতিরিক্ত শিক্ষার্থী ভর্তি করে, এটা যেন না হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গরিব শিক্ষার্থীরা যাতে পড়াশোনা করে সাবলম্বী হতে পারে সে জন্য তাদের সহায়তা দিতে তার সরকার প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠা করেন। দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সহায়তা দিতে ২০১২ সালে এক হাজার কোটি টাকা সিড মানি দিয়ে এ ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠা করেন তিনি।

সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ট্রাস্টের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান প্রমুখ। ২০১৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৫৫০ কোটি ৯০ লাখ টাকা উপবৃত্তি ও আর্থিক সহায়তা হিসেবে দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্টের কার্যক্রম ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা পর্যালোচনার জন্য সভায় তুলে ধরেন ট্রাস্টের ম্যানেজিং ডিরেকটর নাসরিন আফরোজ।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *